SEO

ওয়েবসাইট ভিজিটর বাড়ানোর সহজ ৭ টি উপায়

বাংলাদেশের সরকারি বেসরকারি কিংবা আদা- সরকারি সব ধরনের চাকরির আপডেট পেতে Dream Jobs BD এর সাথে থাকুন

ওয়েবসাইট র‍্যাঙ্ক করার উপায় সমুহ

একটি ওয়েবসাইটের ভিজিটর বাড়ানো অনেকগুলো বিষয়ের উপর নির্ভর করে। আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইটি উপরের সারির মধ্যে নিয়ে আসতে চান তবে যে বিষয়গুলোর প্রতি লক্ষ্য রাখতে পারেন –

  • ওয়েবসাইট কন্টেন্ট – বলা হয়ে থাকে কন্টেন্ট ই হলো কিং। কারণ আপনার ওয়েবসাইটের এর কন্টেন্টগুলোর জন্যই ওয়েবসাইটে ভিজিটর আসবে। যদি কান্টেন্টগুলো ভিজিটরদের জন্য উপকারী হয়ে থাকে তবে ভিজিটর তা পড়বে আর যদি ভালো কন্টেন্ট তৈরী করতে না পারেন কিংবা গ্রাহক নির্ভর কন্টেন্ট না হয় তবে ভিসিটর চলে যাবে যা বাউন্স হিসেবে গন্য হবে।
  • ওয়েবসাইটের এসইওসার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন বা সংক্ষেপে এসইও। এটি অনেকগুলো বিষয়ের সমন্বিত এক কার্যপদ্ধতি যা আপনার সাইটটিকে বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিন — গুগল, বিং, ইয়াহু ইত্যাদির কাছে তুলে ধরবে। মানুষ মুলত এসব সার্চ ইঞ্জিনেই তাদের প্রয়োজনীয় বিষয় সম্পর্কে অনুসন্ধান করে থাকে, এক্ষেত্রে আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইটটির যথাযথ এসইও করে থাকেন তাহলে সহজেই আপনার সাইটের কন্টেনগুলো ভিজিটররা পেয়ে যাবে এবং দিনকে দিন আপনার ওয়েবসাইটের ভিজিটর বাড়তে থাকবে।
  • সোশ্যাল মিডিয়া শেয়ার – আপনার কন্টেন্টগুলো বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে ভিজিটর দের কাছে পৌছে দেয়ার মাধ্যমে তা আপনি ওয়েবসাইটে ভিজিটর বাড়াতে পারবেন। তবে এ ব্যাপারে অবশ্যই কিছু নিয়মনীতি রয়েছে।
  • কি ওয়ার্ড রিসার্চ – মানুষ কি কি বিষয়ে সবথেকে বেশি সার্চ করে সে বিষয়গুলো যদি বের করে নিতে পারেন পাশাপাশি সেসকল কিওয়ার্ডের কম্পিটিশন এবং মুল্য দেখে নিতে পারেন। এসকল কিওয়ার্ডের উপর ভিত্তি করে নতুন নতুন আর্টিকেল বা কন্টেন্ট বানাতে পারেন। বিনামুল্যে জনপ্রিয় কিছু কিওয়ার্ড রিসার্চ টুলের মধ্যে রয়েছে — গুগল কিওয়ার্ড প্ল্যানার,গুগল ট্রেন্ডস, উবার সাজেস্ট, বিং এসইও, ইত্যাদি।
  • ওয়েবসাইট লোডিং স্পিড – আপনার ওয়েবসাইটের লোডিং স্পিড যদি ধীরগতির হয় তবে তা অন্যান্য ওয়েবসাইটের থেকে পিছিয়ে থাকবে। সুতরাং বেশি বেশি ওয়েবসাইটা ভিজিটর পেতে অবশ্যই আপনার ওয়েবসাইটের লোডিং স্পিড বাড়াতে হবে এবং খেয়াল রাখতে হবে ওয়েবসাইট লোডিং স্পিড যাতে ধীরগতির না হয়ে যায়।
  • সাইট স্ট্রাকচার এবং আকর্ষনীয় ডিজাইন – আপনার ওয়েবসাইটের স্ট্রাকচার এবং ডিজাইন যদি সুন্দর হয় তবে সহজেই ভিজিটরদের কাছে তা জনপ্রিয় হয়ে যাবে।
  • সাইট সিকিউরিটি – আপনার ওয়েবসাইটের সিকিউরিটি যদি দুর্বল হয় তবে তা উন্নত করে নিন। আপনার ওয়েবসাইটের সিকিউরিটি দুর্বল হলে তা যেকোনো সময় আপনার নিয়ন্ত্রয়ের বাহিরে চলে যেতে পারে, এছাড়াও বিভিন্ন ব্রাউজার এবং সার্চ ইঞ্জিন আপনার সাইটটে প্রবেশের অনুমোদনের ক্ষেত্রে সতর্কতা দেখাতে পারে।

মাস্টারসাব – Master Saab সব সময়ই আপনাদের কথা মাথায় রেখে অনলাইন এর বিভিন্ন খুটিনাটি নিয়ে হাজির হয়। মাস্টারসাব – Master Saab থেকে আপনি অনলাইন আর্নিং, ফ্রিল্যান্সিং, ইউটিউবিউবিং, ব্লগিং এর খুটিনাটি পেয়ে যাবেন। সুতরাং আপনাদের সাথে আমাদের এই পথচলা দীর্ঘায়িত করতে অবশ্যই আমাদের সাথে থাকুন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button